অনুধাবনই

যেদিন মানুষ বুঝতে পারে, তাকে প্রদর্শন করা হাসি মেক, তখন প্রদর্শনকারীর সাথে বন্ধুত্বে ভিত্তি ভঙ্গুর হয়ে পড়ে; অনেক হাসিই যে ‘ফ্যান্টাসি’ হয়, তখন তা ধরায় ধরা পড়ে!

যখন মানুষ জানতে পারে, তার সেদিনের চোখের জলে বেদনার চেয়ে ছলনা বেশি ছিলো, সে কুমির-কান্নাকারী সাময়িক সহানুভূতি গেলেও আখেরে হৃদ্যতা হারায়, হারায় আবেদন… মায়াকান্না সে হৃদয় দিযে অনুভব করে…

যেদিন কেউ বুঝতে পারে, বন্ধুর আচরণ মেকি ছিলো, সেদিন সে ‘ব্যক্তি’র অভিনয় দিনশেষে তার স্বরূপ প্রকাশ করে, ধ্বংস করে দেয় সমস্ত আস্থা, বিশ্বাস, ভালোবাসা।। সম্পর্ককে সে নতুনভাবে আবিষ্কার করে…

যেদিন মানুষ দৈবাৎ আঁচ বা অনুধাবন করতে পারে, নিঃশব্দে নিঃশ্বাস চলে যাওয়ার পর, মরহুমের জন্য বা অনুপস্থিতিতে কোন কিছুই থেমে থাকেনা, যেদিন মানুষ বুঝতে পারে ‘কেউ অপরিহার্য নয়’, সেদিন মানুষ জীবনের প্রতিটা নিঃশ্বাসকে মূল্য দেয়; মূল্য দেয় প্রতিটা মুহুর্তকে: কেউ ভোগে, কেউ উপভোগে….. কেউ বা সাধনায়…


নাজিম
জানুয়ারি ১৮, ২০১৪

লেখাটি লিখেছেন