অচেনা প্রান্তর

0
8

অচেনা প্রান্তর

এক অজানা ভুবনে এসে জড়ো হওয়া কিছু মানুষ,
পরিচিত হয়, হয় বন্ধুতা, হৃদ্যতা, জ্বালায় আশার ফানুস!
কখনো ভিসুভিয়াসের লাভার মতো, কখনো মধ্যাহ্ন অগ্নিতে
দুর্গমগিরি ফেলে শ্বাপদসংকুল জনপদে গড়ে স্বপ্নসৌধ।

একসময়, কিছুসময় পরে, অচেনা থাকেনা কিছুই,
ভাবে, কতকালের, কতজনমের আত্মীয় এ ধরা!
বসুন্ধরা বানিয়েছে তারা, যত থাকুক কষ্ট, দুর্যোগ, খরা।
প্রাণী, হিংস্রজীব পরাভূত, অজেয় মানুষ ভাবে,
হয়তো চিরদিন থাকবে এ জীবনের বহতা নদী..
মায়ায় পড়ে যায় এ জীবনের সকল সম্পর্কের সাথে
‘মানবের মাঝে বাঁচিতে’ চায় সে বহুদিন, বহুকাল।

কিন্তু হায়! যে কালকে নিজের ভেবে বহুকাল ছুটেছে,
যে যৌবনের রূপলাবণ্যকে চিরঞ্জীব ভেবে দম্ভ করেছে
করেছে নিজের চেয়েও বেশি প্রিয় সহচর।
সে সময়-কাল-যৌবন দেখায় নিমিষেই বার্ধক্যে যবনিকাপতন।
আহা! কত ক্ষুদ্র এ আয়ুষ্কাল, সেটা বুঝার আগেই
মহাকালের সাথে বিলীন হয়ে যাওয়া মানুষ কাঁদে,
কাঁদে সামান্যসময়ের এ বিরল উপঢৌকনরূপ সময়
মরীচিকার পানে ছুটে কাটিয়েছে হেলায়, অবহেলায়।
অপচয়ে, অপব্যয়ে কাটিয়েছে মূল্যবান জীবনকে।

যে অচেনা প্রান্তর এতোদিন মায়াজালের আপনভূবন ছিলো,
সে শহর আজ ভাবছে যেন অচিনপুরের এলিয়ন!
হায় অচেনা প্রান্তর, বহমান কাল, মহাকাল, মায়ার ভুবন!….


মোঃ নাজিম উদ্দিন
জুলাই ৮, ২০২২